সমন্বয়হীনতায় ফরটিস ইন্ডিয়া-এএফসি হেলথ ভুল বোঝাবুঝি

afc health
শেয়ারটাইম্‌স২৪ডটকমঃ ফরটিস ইন্ডিয়ার সাথে এএফসি হেলথ লিমিটেডের সকল চুক্তি বহাল রয়েছে। কুমিল্লা হাসপাতালের সক্রিয় চুক্তি মেয়াদ আরও ১২ বছর বহাল রয়েছে (২০১৭ সালের ১০ মে স্বাক্ষরিত হয়েছে) বলে এএফসি হেলথ’র কাগজ ঘেটে দেখা গেছে।

যশোর রয়েছে একটি আউটরিচ ক্লিনিক বা কনসালটেশন সেন্টার যা খুলনা হাসপাতালের রেফারেল সেন্টার হিসেবে পরিচালিত হয়। ফরটিস ইন্ডিয়ার সাথে থাকা সকল চুক্তি এখনও বহাল রয়েছে। এএফসি হেলথ কোথাও আইনের ব্যত্যয় ঘটাইনি বলে জানা গেছে।

সম্প্রতি ফরটিস ইন্ডিয়ার মালিকানা রদবদল হয়েছে। মালয়েশিয়া ভিত্তিক আইএইচএইচ গ্রুপ ফরটিস ইন্ডিয়ার মালিকানা স্বত্ব কিনে নেয়। আর বদলে যাওয়া ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষের এক চিঠিতে বিষয়টি নিয়ে বিতর্ক সৃষ্টি হয়। কুমিল্লা ও যশোর ইউনিটের জন্য ফরটিস এর সাথে এএফসি হেলথের কোন চুক্তি হয়নি বলে উল্লেখ করা হয়েছে।

ফরটিস ইন্ডিয়ার সাথে এএফসি হেলথ লিমিটেডের অপারেশন ও ম্যানেজমেন্ট চুক্তির আওতায় ফরটিস ইন্ডিয়ার কিছু সার্ভিস দেবার বাধ্যবাধকতা এবং ব্র্যান্ড ব্যবহারের অনুমতি প্রদান করে। ভুল বোঝাবুঝির কারণে এএফসি হেলথের বিরুদ্ধে বিএসইসিতে চিঠি দিয়ে বিভ্রান্তিকর তথ্য প্রদান করেছে ফরটিস ইন্ডিয়া। পরে পাল্ট চিঠি পাঠিয়েছে এএফসি হেলথ কর্তৃপক্ষ।

সম্প্রতি পুঁজিবাজারে প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) অনুমোদনপ্রাপ্ত এএফসি হেলথ লিমিটেড এবিষয়ে বিএসইসিকে জানিয়েছে যে ভারতীয় প্রতিষ্ঠানদ্বয়ের ম্যানেজমেন্টের ভুল বোঝাবুঝির কারণে এমন ভিত্তিহীন অভিযোগ প্রেরণ করেছে। সাম্প্রতিক সময়ে ভারতীয় ফরটিস গ্রুপের ব্যবস্থাপনায় বেশ পরিবর্তন সাধিত হয়। একপ্রকার সমন্বয়হীনতা থেকে এই ভুল বোঝাবুঝি সৃষ্টি হয়েছে বলে এএফসি হেলথ কর্তৃপক্ষ জানায়।

বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) ৭৪০তম নিয়মিত সভায় এএফসি হেলথ লিমিটেডের প্রাথমিক গণপ্রস্তাব (আইপিও) অনুমোদন দেওয়া হয়। কোম্পানিটি অভিহিত মূল্যে শেয়ার ইস্যুর মাধ্যমে ১৭ কোটি টাকা সংগ্রহ করবে। এএফসি হেলথের ২০১৮-১৯ অর্থবছরে শেয়ারপ্রতি মুনাফা (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ৪৭ পয়সা। আর শেয়ারপ্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) রয়েছে ১৩ টাকা ১৩ পয়সা।